43 একটি লাবণ্যকে

জানালায় হাতড়িয়ে
খুঁজি অনবরত
একটি লাবণ্যকে ।

যখন উঠোনের
অনেকটা জায়গা জুড়ে
রোদের এক্কা দোক্কা খেলা ।
তখন দূরের কাচের স্বচ্ছ দীঘিতে
ঐতো স্পর্শ দেখতে পাই
লাবণ্যকে ।
ওইতো সেই কালো চুল
যার অনেকটা গভীরে ডুবে থাকত
আমার মুগ্ধ আঙুলগুলো ।
লাবণ্য তোমার সেই গাঢ় নীল আঁচল
যাকে প্রায়ই দমকা হাওয়া এসে উড়িয়ে দিতে ।
অস্বাভাবিকতায় আমিও হারাই তাকে ।

বুনো ফুলের তীব্র গন্ধে
অযথা মন ভারী হয়ে যায়;
কেননা লাবণ্য ভালোবাসত এই বুনোটাকে ।
আজও জট করে
বেড়ে ওঠে
লাবণ্য একটু ছোঁয়ার অস্থিরতা ।

শেষ বিকালের গোধূলির মতই
লাবণ্যের রঙীন ঠোঁট
একসময় একটু ছুঁয়ে দিলে
আরেকটু বেশী লজ্জার রঙে
রঙীন হয়ে উঠত প্রিয় মুখ;
কিন্তু আজ নিষিদ্ধ স্পর্শ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *