27 ঈশ্বর ভগবান আল্লাহ্

জন্মগত, প্রথাগত কারণে
বংশের ইতিহাসের হাতখানি ধরে
হাঁটিহাঁটি পা করে,
বেছে নিতে হয় একজন সৃষ্টিকর্তাকে;
যিনি হতে পারেন ঈশ্বর,
হতে পারেন ভগবান,
এমনকি আল্লাহ্ ।

মূলত আমরা
একই সৃষ্টিকর্তার মানুষ
একই রক্তমাংসের মানুষ ।

অথচ অযথা
আমরা কিনা সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে
দাঙ্গা বাঁধাই
তুমুল হাউকাউ করি ।
না ভেবে
ভাঙ্গি বাবরী মসজিদ,
অপবিত্র করি সেন্ট পল গির্জা,
নষ্ট করি ঢাকেশ্বরী মন্দিরের সৌন্দর্য ।

অথচ বিরামহীন রক্ত ফেলেও
সৃষ্টিকর্তা পাওয়া যায় না ।
স্বয়ং সৃষ্টিকর্তা নাখোশ হবেন ।

ঈশ্বর তো গির্জা ভাঙ্গা থামায় না,
কিংবা ভগবান তো মন্দির বাঁচায় না,
কিংবা আল্লাহ্ তো মসজিদ রক্ষা করে না ।
আমাদের এই উপাসনালয়গুলোর পবিত্র রক্ষার
দায়িত্ব সৃষ্টিকর্তা কেন নিবেন ?
আমাদের মতন মানুষগুলো
সেগুলো পবিত্র না করে
নিজেরা নিজের ধ্বংসলীলায় ব্যস্ত ।
ধর্মের নামে
বীরত্ব দেখাতে গিয়ে
প্রতিদিন লাশ হয়ে ঘরে ফিরছে
খ্রীষ্টান, মুসলমান, হিন্দু ।
এতে ঈশ্বর,ভগবান,আল্লাহ্-র
কোন লাভ-লোকসান হয় না ।
ধর্মের জন্যে মানুষ হত্যা করে
সৃষ্টিকর্তাকে কেউ কোনদিন সুখী করতে পারে নি ।
বরঞ্চ সৃষ্টিকর্তার অভিমান,আক্রোশ বেড়ে যাবে সীমাহীন ।
অথচ দাঙ্গায় আমরা হারাই
আমাদের ভাই, ব্রাদার,দাদা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *